রাজ্যের দেওয়া হেল্পলাইন নং কাজ করছে না, সমস্যায় অন্য রাজ্যে আটকে থাকা শ্রমিকরা - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, May 6, 2020

রাজ্যের দেওয়া হেল্পলাইন নং কাজ করছে না, সমস্যায় অন্য রাজ্যে আটকে থাকা শ্রমিকরা

রাজ্য সরকার অন্য রাজ্যে আটকে থাকা বাংলার শ্রমিক, পর্যটক, রোগীদের ফেরাতে উদ্যোগ নিচ্ছে। রাজস্থান ও কেরালা থেকে দুটি ট্রেনে বাংলায় ফিরেছে শ্রমিক ও পর্যটকরা। চালু করা হয়েছে হেল্প লাইন নং, নোডাল অফিসার আইএএস পি বি সেলিমের নং ও দেওয়া হয়েছে।

প্রথমে রাজ্য সরকার অন্য রাজ্যে আটকে টাকা বাংলার শ্রমিকদের খাওয়ার বন্দোবস্ত করার আশ্বাস দিয়েছিল, মুখ্যমন্ত্রী চিঠি দিয়েছিলেন ১৮ টি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে। খুব কিছু কাজ হয়নি৷ কেরালার মতো রাজ্য পরিযায়ী শ্রমিকদের খাওয়ার দায়িত্ব নিলেও অন্য বেশিরভাগ রাজ্যের ক্ষেত্রে তা হয়নি। প্রচন্ড সমস্যায় আছে বাংলার শ্রমিকরা।

তারপর অন্য রাজ্যে আটকে থাকা শ্রমিকদের এককালীন ১০০০ টাকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করে রাজ্য সরকার, প্রকল্পের নাম "স্নেহের পরশ"। কিন্তু কজন শ্রমিকের স্মার্টফোন আছে। আবার থাকলেও আবেদনের যে জটিল প্রক্রিয়া কজনই বা আবেদন করতে পেরেছেন? প্রকল্পের সুবিধা পায়নি অধিকাংশ শ্রমিকই।

এবার সমস্যা ফিরিয়ে আনা নিয়ে। রাজ্য সরকার হেল্প লাইন নং দিলেও তা কাজ করছে না, কোনো নং এই ফোন করে কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না। যেখানে অন্যান্য রাজ্যে বাংলার প্রায় ৩-৪ লাখ শ্রমিক আটকে আছে, সেখানে আপাতত মাত্র দুটি ট্রেনে ফিরিয়ে আনা হয়েছে মাত্র ৩ হাজার মানুষকে। মুম্বাই, হায়দ্রাবাদ, গুজরাট, দিল্লী, চেন্নাইয়ে আটকে থাকা বাংলার শ্রমিক, পর্যটক ও রোগীরা বুঝতে পারছেন না, কি করবেন। কিভাবে তারা রাজ্য সরকারের সাথে যোগাযোগ করবেন, কিভাবেই বা তারা বাড়ি ফিরবেন- এ প্রশ্নের উত্তর নেই অনেকের কাছেই।

     (গুজরাটে আটকে থাকা এক বাঙালির বক্তব্য)

রাজ্য সরকারের থেকে সেভাবে কোনো পদক্ষেপ নজরে আসছে না। সমস্যায় বাংলার শ্রমিকরা৷ এই জন্যই সরকারের দিকে নিশানা শানাচ্ছে বিরোধীরা। অধীর চৌধুরী ও সুজন চক্রবর্তী এ ব্যাপারে বারবার সোচ্চার হয়েছেন এবং হচ্ছেন।

-নিজস্ব সংবাদদাতা, বাংলার চোখ

No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad