'দিন রাত্রির গল্প'- স্পেস ফিকশনের মোড়কে এক অনবদ্য সাসপেন্স থ্রিলার - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Sunday, February 16, 2020

'দিন রাত্রির গল্প'- স্পেস ফিকশনের মোড়কে এক অনবদ্য সাসপেন্স থ্রিলার

দিনের আলোতেও যেমন ঝলসে ওঠে চোখ। ঠিক তেমনই রাতের নিকষ কালো অন্ধকারেও নিমজ্জিত হতে পারে দৃষ্টি। এই অনুভব-দৃষ্টির তারতম্যের মধ্যেই প্রভাব ফেলে এক একটি ব্যতিক্রম।আজীবন চিকিৎসা বিজ্ঞানের সঙ্গে বাস করা, চিকিৎসক-অধ্যাপক প্রসেনজিৎ চৌধুরীর হাত ধরে, বাংলা ছবির জগতে আসতে চলেছে এমনই এক ব্যতিক্রম। বাংলার প্রথম 'স্পেস ফিকশন' আসতে চলেছে বড় পর্দায়। পরিচালক প্রসেনজিৎ চৌধুরীর আগামী ছবি, 'দিন রাত্রির গল্প।'  দিন আর রাত্রির এক অন্য-কাহিনীই বলবেন পরিচালক।


ঘটনার ঘনঘটা, নতুন ভাবনার বুননে তৈরি হয়েছে এই ছবিটি। যেখানে সুপ্রীতি চৌধুরী, প্রসেনজিৎ চৌধুরীর কলমে প্রকাশ পেতে চলেছে এক মেয়ের সফলতা এবং আরেক মেয়ের রহস্যের গল্প। একদিকে দিনের ঔজ্জ্বল্য, আরেকদিকে রাতের অন্ধকারের কাহিনীই ফুটে উঠেছে 'দিন রাত্রি'র গল্পে।


 উল্লেখ্য, সুপ্রীতি চৌধুরী, রজতাভ দত্ত, প্রদীপ মুখার্জি, দেবেশ রায় চৌধুরী, সৌরভ চক্রবর্তী, রায়তী ভট্টাচর্য্যের মতো দক্ষ অভিনেতাদের মিশেলে এবং শান্তনু দত্তের সঙ্গীত, দীপঙ্কর দাসে'র ভিএফএক্স এর প্রয়োগে, স্পেস ফিকশন এবং রহস্যের ঘনঘটা সৃষ্টি হয়েছে দারুণভাবে, আশাবাদী পরিচালক সহ ছবির কলাকুশলীরা।


 প্রসঙ্গত, সাহসী ভাবনাতে উঠে এসেছেন ছবির মুখ্য চরিত্র অরুণিমা চ্যাটার্জী। যে বাঙালি কন্যা, নাসার ডাক পেয়ে গোপনে অভিযানে পাড়ি দিচ্ছেন। মা-বাবার অজান্তেই, মধ্যবিত্ত সংসারে, শৈশবের আকাশে সপ্তর্ষিমন্ডল দেখে শান্ত হওয়া মেয়েটিই সাকার করতে চলেছেন স্বপ্ন। এইরকম এক অদ্ভুত পরিস্থিতিতে, অরুণিমার বাড়িতে তাঁর কথা জানাতে আসেন 'নাসা'র প্রতিনিধিরা।  পরিবার জানতে পারে, এক বিস্ময়কর ঘটনা। তাঁদের মেয়েই প্রথম পাড়ি দিচ্ছে মঙ্গলগ্রহে। পৃথিবীতে তৈরি হচ্ছে এক নতুন ইতিহাস। এরপরও পরিচালক রেখেছেন রহস্য। কিন্তু সেটা কি? জানতে হলমুখী হতেই হবে দর্শককে। ইতিমধ্যেই ছবির টিজার প্রকাশের পরই, উত্তেজনা তুঙ্গে।


 এদিকে, এখানেই শেষ হচ্ছে না 'দিন রাত্রির গল্প'। এক রাতের রহস্যাবৃত গল্পও যেন দারুণ পাওয়া হতে চলেছে দর্শকের কাছে। দুর্যোগের রাতে, একটি অচেনা মেয়েকে আশ্রয়, তাঁকে ঘিরে মৃত্যু, খুন, ভয়- চলতে থাকা রহস্য, আর তার কারণের অনুসন্ধানই এখানে মূখ্য। 


 আসলে 'নুন আনতে পান্তা ফুরোনো'র সংসারে, সন্তানের মহাকাশ পাড়ি, অলীক কল্পনার নামান্তর মাত্র। খালি চোখেই কালপুরুষ বা আকাশের নক্ষত্র দেখেই ঘুমিয়ে পড়তে হয় প্রায় সব শিশুকেই। প্রতিবন্ধকতার মায়াজালে আটকে থাকে আকাশে পাড়ি দেওয়ার মতো স্বপ্ন।  কিন্তু চিকিৎসক-পরিচালক প্রসেনজিৎ চৌধুরী, তাঁর মৌলিক ভাবনা দিয়ে, এই অসাধ্যকেই সাধন করতে চলেছেন এবার। রজতাভ, প্রদীপ, সুপ্রীতি'র মতো যোগ্য অভিনেতাদের সঙ্গতে, 'স্পেস ফিকশন' এবং দিন-রাতের এক,  কাহিনীর সার্থক রূপ, আগামী ২৮শে ফেব্রুয়ারী  পেতে চলেছেন বাংলার সিনে-প্রেমিরা।

No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad