বিজেপির সভা বানচাল করার চেষ্টা উপেক্ষা করে ঠাকুরনগরে বাংলাপক্ষের এনআরসি বিরোধী সভায় মতুয়াদের ঢল - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Thursday, October 17, 2019

বিজেপির সভা বানচাল করার চেষ্টা উপেক্ষা করে ঠাকুরনগরে বাংলাপক্ষের এনআরসি বিরোধী সভায় মতুয়াদের ঢল



অসমে নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশে ১৯ লক্ষ মানুষের নাম বাদ দেওয়া হয়েছে যার মধ্যে ১৭ লক্ষ বাঙালি । এর মধ্যে রয়েছে ১১ লাখেরও বেশি হিন্দু বাঙালি। ছয় লাখের কিছু বেশি মুসলমান বাঙালি। বাকি দুই লাখের মধ্যে রয়েছে বিহারী, নেপালী, লেপচা প্রভৃতি। এই নিয়ে তীব্র বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে । অনেকের দাবি এই পক্রিয়ার মাধ্যমে বাঙালিদের পরিকল্পিতভাবে রাষ্ট্রহীন করা হয়েছে । এর ফলে পথে নামছে বহু বাঙালি সংগঠন । গত ৩১ শে আগস্ট এন আর সি র ফাইনাল তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। আসামের বাঙালি ঐতিহাসিক সংকটে। এন আর সি কে কেন্দ্র করে প্রায় ৮০ জন বাঙালি আত্মহত্যা করেছে। বাংলায় এন আর সি করার জন্য গলা চড়াচ্ছে বিজেপি। ইতিমধ্যে বাংলায় এন আর সির আতঙ্কে আত্মহত্যা করেছেন ১০ জনের বেশি বাঙালি ।


বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরেই ঠাকুরনগরের মতুয়া সম্প্রদায়ের মধ্যে বেড়ে চলেছে এনআরসি নিয়ে ধোঁয়াশা। জাঁকিয়ে বসছে দেশহীন হওয়ার আতঙ্ক। এই পরিস্থিতিতে বুধবার বিকেলে ‘বাংলাপক্ষ’ ঠাকুরনগর নেতাজী স্ট্যাচু মোড়ে এক বড়সড় এন.আর.সি বিরোধী সভার আয়োজন করা হয়। এই সভাকে কেন্দ্র করেই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।


অভিযোগ বিজেপি-আরএসএস  কর্মীরা আগাগোড়া সভাস্থল ঘিরে রেখেছিলেন। মাঝে মাঝেই ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান তোলেন তারা। ঘটনার পর স্থানীয় মানুষ এলাকায় সন্ত্রাসের পরিবেশ সৃষ্টি করার গুরুতর অভিযোগ তুলেছেন বিজেপির বিরুদ্ধে। এমনকি বাংলা পক্ষের সদস্যদেরও এলাকায় ঢুকতে বাধা দেন স্থানীয় গেরুয়া শিবির। পরে পুলিশি এসে অবস্থা নিয়ন্ত্রণে আনলে সভা শুরু হয়।

অভিযোগ উঠছে মাঝখানে বার দুয়েক মাইকের তার ছিঁড়ে দিয়ে সভা পণ্ড করার চেষ্টা করা হয়। তবে বাংলা পক্ষের সদস্যরা প্ররোচনায় পা না দিয়ে সভা চালিয়ে যান। তাই শেষমেষ কোনো উপায় না দেখে  বিজেপির কর্মীরা সরাসরি মারধোরের রাস্তায় চলে যান। স্থানীয় বিজেপি নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তারা এই ব্যাপারে কোনও মন্তব্য করতে চাননি।

গত দেড় বছরে বাংলায় এন আর সি বিরোধী আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছে বাঙালির অধিকার আদায়ের সংগঠন বাংলা পক্ষ। সভার অন্যতম উদ্যোক্তা বাংলা পক্ষের কৌশিক মাইতি বলেন বলেন, 'আমরা ভোট চাইতে আসিনি। এসেছি বাঙালির অধিকার আদায় করতে৷ তাই যে দলই করুন, বাঙালির পক্ষে দাঁড়ান । বাঙালিক ধ্বংস করতে এন আর সি নামের যে চক্রান্ত তা ব্যর্থ করতে আমাদের লড়াই চলছে, আমরা রক্ত দিয়ে হলেও এন আর সি রুখবো।" বাংলা পক্ষর গর্গ চট্টোপাধ্যায়  বলেন, 'এন আর সি আসলেই বাঙালি বিরোধী।বাংলা পক্ষ যেন আর সি বিরোধী লড়াইয়ে আছে।" তিনি নানা পরিসংখ্যানও তুলে ধরেন। তিনি এন আর সি বিরোধী লড়াইয়ে সকলকে ডাক দেন, হুঁশিয়ারী দেন বাঙালি বিরোধীদেরও৷ 

বাংলাপক্ষের অনির্বান ব্যানার্জী বলেন " ঠাকুরনগর মূলত উদ্বাস্তু বাঙালির এলাকা। এন আর সি ইস্যুতে বাঙালিকে সচেতন করা আমাদের কর্তব্য। বাঙালি উদ্বেগ ও আতঙ্কে আছে। আজকের সভা সফল। আমাদের লড়াই চলছে। আগামী দিনে এলাকার প্রতিটা ওয়ার্ড ও প্রতিটা বাড়ি বাড়ি পৌঁছাতে চাই আমরা।"

নিজস্ব সংবাদদাতা 
বাংলার চোখ 

No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad