সহপাঠীরা ক্লাসে ইংরেজি আর হিন্দিতে কথা বলায় মানাতে না পেরে আত্মহত্যা মেধাবী ছাত্র হৃষীকের - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Saturday, August 3, 2019

সহপাঠীরা ক্লাসে ইংরেজি আর হিন্দিতে কথা বলায় মানাতে না পেরে আত্মহত্যা মেধাবী ছাত্র হৃষীকের

উচ্চমাধ্যমিকে ৫০০ এর মধ্যে ৪৭২ নম্বর পাওয়া হৃষীক অসম্ভব মেধাবী | পদার্থবিদ্যা নিয়ে ভর্তি হয় সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে | বাংলা মাধ্যমের সাধারণ পরিবারের ছেলেটি কলেজের পরিবেশের সঙ্গে তাল মেলাতে পারছিল না। তাল মেলাতে পারছিল না বিত্তবান ঘরের ছেলেমেয়েদের সাথে | সে মানাতে পারছিল না কারণ সহপাঠীরা ক্লাসে ইংরেজি আর হিন্দিতে কথা বলে , বাংলায় বলে না | সে মানাতে পারছিল না কারণ সহপাঠীদের কথায় কথায় তাদের এলিটনেস প্রকাশ পায় |


সিঙ্গুর থেকে কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্সে পড়তে এসেছিলেন তিনি। তার পরে নিখোঁজ হয়ে যান হৃষীক কোলে। বৃহস্পতিবার তাঁর দেহ পাওয়া যায় বেলুড়ের কাছে রেললাইনে। বেলুড় জিআরপি জানিয়েছে, উত্তরপাড়া ও হিন্দ মোটর স্টেশনের মাঝামাঝি অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের দেহ পাওয়া গিয়েছিল। মাথা ও ধড় পড়ে ছিল আলাদা ভাবে। শুক্রবার সন্ধ্যায় হৃষীকের পরিবারের লোকজন দেহটি শনাক্ত করেছেন।

সেন্ট জেভিয়ার্সের অধ্যক্ষ ফাদার ডমিনিক স্যাভিও বলেন, ‘‘হস্টেল সুপারের কাছে হৃষীকের সমস্যার কথা শুনেছিলাম। তবে এই নিয়ে ওর সঙ্গে কথা বলার আগেই যে এমন দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটে যাবে, সেটা ভাবতে পারেনি। আমরা মর্মাহত।’’


পুলিশ জানায়, হৃষীক বৃহস্পতিবার সকালে হস্টেলের রুমমেটকে বলেছিলেন, সহপাঠীরা ক্লাসে ইংরেজি আর হিন্দিতে কথা বলায় তিনি মানাতে পারছেন না। তার পরেই বালতি কেনার নাম করে তিনি হস্টেল থেকে বেরোন। পরে কলেজে যাননি, হস্টেলেও ফেরেননি।শুক্রবার ছাত্রটির বাবা লালবাজারে গোয়েন্দা-প্রধানের কাছে গিয়ে জানান, বাংলা মাধ্যমে পড়লেও হৃষীক খুবই মেধাবী ছিলেন। অঙ্কে খুব ভাল হলেও এক শিক্ষকের কথায় জেভিয়ার্সে পদার্থবিদ্যায় অনার্স নেন।

ভাবতে পারছেন বাংলার বুকে দাঁড়িয়ে কি হচ্ছে চারিদিকে | সেন্ট জেভিয়ার্সের মতো কিছু কলেজ টাকার পিশাচ হয়ে গেছে। এই কলেজে মূলত উচ্চবিত্ত বাঙালি, অবাঙালি ছেলেমেয়ে পড়াশোনা করে | মানবিকতা বোধ এদের নেই | শুধু পড়াশোনা জানলেই আর দু লাইন ইংলিশ জানলেই শিক্ষিত বলা যায় না | প্রেসিডেন্সির বা যাদবপুরের একটা মানবিকতা আছে, যে সবাইকে তারা তাদের প্রতিষ্ঠানে স্থান দেবে, যেন কেউ অর্থ অথবা ইংরেজি, হিন্দি না জানার জন্যে বঞ্চিত না হয় | প্রেসিডেন্সি বা যাদবপুরে আজও বাংলা মাধ্যমের সাধারণ পরিবারের বহু মেধাবী ছেলেমেয়ে পড়ে এবং বেশিরভাগের মধ্যে মানবিকতাবোধ আছে | যেটা এইসব সেন্ট জেভিয়ার্সে পাওয়া মুশকিল (ব্যতিক্রম হয়ত কিছু আছে কিন্তু হাতেগোনা ) |

রেল পুলিশের খবর, হাওড়ায় সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে কাটা সিঙ্গুরের ট্রেনের একটি টিকিট এবং সুইসাইড নোট মেলে ওই যুবকের পকেটে। ঘটনাস্থলে ধানবাদ আইআইটি লেখা একটি নীল ব্যাগ পাওয়া গিয়েছে। তাতে ছিল কিছু বই, জলের বোতল। কোনও পরিচয়পত্র মেলেনি। রেল পুলিশ ধানবাদে যোগাযোগ করে কোনও উত্তর না-পেয়ে বিষয়টি জানায় আশপাশের বিভিন্ন থানায়। হাওড়ার এসআরপি নীলাদ্রি চক্রবর্তী জানান, কোলে পরিবার যুবকের দেহ ও ব্যাগ শনাক্ত করেছেন। ব্যাগটি হৃষীকের দিদির।


No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad