শতবর্ষে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Thursday, August 1, 2019

শতবর্ষে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব

বাংলার বিখ্যাত ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের জন্ম ১৯২০তে। ইস্টবেঙ্গল ক্লাব জন্ম নেওয়ার নেপথ্যে কিন্তু রয়েছে শতাব্দীপ্রাচীন মোহনবাগানের ভূমিকা ৷ সেবার কোচবিহার কাপের ফাইনালে মুখোমুখি মোহনবাগান ও জোড়াবাগান। চ্যাম্পিয়ন হল মোহনবাগান৷ সেই ম্যাচ জোড়াবাগান জিতলে হয়তো 'ইস্টবেঙ্গল' নামক ক্লাবটার উৎপত্তিই হত না৷ আসলে সেই ম্যাচে দুই ‘বাঙাল’ শৈলেশ বসু ও নসা সেন খেলেছিলেন৷ বাঙালদের প্রতি বিদ্বেষের কারণে দল হারার সব দায় ওই দু’জনের কাঁধে চাপিয়ে দিলেন ক্লাবের বাঙালি কর্তারা৷ ব্যস! রাগে জোড়াবাগানের ভাইস প্রেসিডেন্ট পদ থেকে ইস্তফা দেন পদ্মার ওপারের ব্যক্তি সুরেশ চৌধুরী৷ ‘ঘটি’দের উচিত শিক্ষা দিতেই তারপর তাঁর হাত ধরে ১৯২০তে জন্ম নিল ‘ইস্টবেঙ্গল’। সেই রেষারেষি আজও অব্যাহত৷

জন্মের কয়েকদিনের মধ্যেই ইস্টবেঙ্গল হারকিউলিস কাপ জেতে। পরের বছর ১৯২১ সালে ইস্টবেঙ্গল জেতে শচীন শিল্ড, ফাইনালে এরিয়ানসকে ৫-০ হারিয়ে। ১৯২৪ সালে মোহনবাগানকে ১-০ পরাজিত করে ইস্টবেঙ্গল জিতল কোচবিহার কাপ। এছাড়াও ইস্টবেঙ্গল ক্লাব ১৯৪২, ১৯৪৩, ১৯৪৫, ১৯৬০-এ কোচবিহার কাপ, ১৯৪২-এ গিরিজা শিল্ড এবং ১৯৬০, ১৯৬৬, ১৯৭৫ ও ১৯৭৬-এ ট্রেডস কাপ জেতার ইতিহাস তৈরি করে।

ভাবলে অবাক লাগতে পারে যে, ১৯২০-তে তৈরি হওয়া ক্লাবটা ১৯২১-এই ৭টা ট্রফি জিতে নিয়েছিল!


ইতিহাস বলছে ইস্ট-মোহন ডার্বির ইতিহাস কিন্তু কম পুরোনো নয়। ফিফার ডার্বি ইতিহাস অনুযায়ী, এই দুই ক্লাবের মধ্যে প্রতিদন্দ্বিতা ৯৫ বছরের পুরোনো। তবে ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগানের মধ্যে প্রথম ম্যাচটি খেলা হয় ১৯২৫ সালে। কলকাতা লিগের এই ম্যাচে ইস্টবেঙ্গল মোহনবাগানকে ১-০ গোল করে হারিয়ে দেয়। জয়সূচক গোলটি করেন নেপাল চক্রবর্তী। তারপর থেকে এখনও পর্যন্ত ভারতের এই দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাবের মধ্যে ৩৩৮টি ডার্বি ম্যাচ খেলা হয়েছে। যা অবশ্যই ইতিহাস সৃষ্টি করেছে বলা চলে। এর মধ্যে ১২৩টি ম্যাচ ইস্টবেঙ্গল জিতেছে। ১০৩ ম্যাচে মোহনবাগান ইস্টবেঙ্গলকে পরাজিত করেছে। আর ১১২টি ডার্বি ড্র হয়েছে।

কোনও বাঙালির কাছে এই দুই টিমের শত্রুতা কোনওদিন শেষ হবে না। এমনও দেখা গেছে, কোনও টুর্নামেন্টে ইস্টবেঙ্গল হেরে গেলেও যে কোনও ভাবে মোহন বাগানকে হারাতে পারলেই ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা খুশি। ঠিক একই ব্যাপার ঘটে মোহন বাগান সমর্থকদের মধ্যেও।

আইপিএল ক্রিকেট যা করতে পারেনি, ফুটবলে এই দুই ক্লাব তা করে দেখিয়েছে অনেক আগেই।


No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad