এন আর সি র সত্যতা এবং আসামের বাঙালির দুরবস্থা - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Sunday, July 14, 2019

এন আর সি র সত্যতা এবং আসামের বাঙালির দুরবস্থা

এন আর সি আসাম এবং বাংলার বর্তমান রাজনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। অবৈধ বাংলাদেশী মুসলমান তাড়ানো হচ্ছে, এই অপপ্রচার কে সামনে রেখে এন আর সি নিয়ে বাঙালিকে ভুল বোঝানো হচ্ছে। গত বছর ৩০ শে জুলাই প্রকাশিত এন আর সি র খসড়া তালিকায় আসামে ৩৮ লক্ষ বাঙালির নাম নেই। যার মধ্যে ৩০ লক্ষ হিন্দু বাঙালি ও ৮ লক্ষ মুসলমান বাঙালি। বাঙালিকে রাষ্ট্রহীন করার চক্রান্ত চলছে। 'ডি ভোটার' হওয়ার কারণে এবং এনআরসি তে নাম না ওঠার কারণে আসামে এখনও পর্যন্ত ৫২ জন বাঙালি আত্মহত্যা করেছে যার মধ্যে প্রায় ৭০% হিন্দু বাঙালি। গতমাসেই আর একটি এক্সক্লুসন লিস্ট বের হয়, যাতে আরও ১ লাখ বাঙালির নাম বাদ যায়। আগামী ৩১ শে জুলাই এন আর সি র চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হবে।
বাঙালিদের বেছে বেছে ডিটেনশন ক্যাম্প নামক জেলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, ক্যাম্পের পরিস্থিতি ভয়াবহ। ধর্ম দেখে না, ভাষা দেখে বাঙালিকে বিদেশী বানানো হচ্ছে। রেহাই নেই শিশু থেকে বৃদ্ধ কারোরই। ১০২ বছরের বৃদ্ধ চন্দ্রধর দাসকে টেনে হিঁচড়ে ডিটেনশন ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
হিন্দু বাঙালি কে সংশোধিত নাগরিকত্ব বিলের টোপ দেওয়া হচ্ছে। অথচ এই বিলের কোথাও নাগরিকত্ব দেওয়ার উল্লেখ নেই, বিলটি সংসদে পাশও হয়নি। হিন্দু বাঙালি ৬ বছর নাগরিকত্বহীন হয়ে থাকার পর বাংলাদেশে ধর্মীয় অত্যাচারের প্রমাণ দেখাতে না পারলে তাকে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী হিসেবে চিহ্নিত করা হবে।
বাঙালির অস্তিত্বের সংকট। এন আর সির বাস্তবতা জানলে, পরিষ্কার বোঝা যায় এন আর সি আসলে একটা বাঙালি বিরোধী চক্রান্ত। যার বলি ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষ সকল বাঙালি।
তাই বাঙালির সত্য জানা এবং বোঝা জরুরী।


No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad