আরপিএফের জায়গায় রেলে বেসরকারি রক্ষী নিয়োগ করল মোদী সরকার, ক্ষুব্ধ আরপিএফ কর্মীরা - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Monday, July 15, 2019

আরপিএফের জায়গায় রেলে বেসরকারি রক্ষী নিয়োগ করল মোদী সরকার, ক্ষুব্ধ আরপিএফ কর্মীরা

ভারতীয় রেলের কর্পোরেটকরণে দ্রুত গতিতে পদক্ষেপ করছে কেন্দ্র। এ বার হাত পড়তে চলেছে রেলের নিরাপত্তা বিভাগেও। রেল নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আরপিএফের জায়গায় প্রাইভেট সিকিউরিটি নিয়োগ শুরু হল। পাশাপাশি আরপিএফ অ্যাসোসিয়েশনের ক্ষমতাও প্রায় কেড়ে নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। অ্যাসোসিয়েশনের নেতাদের ইতিমধ্যে বদলি করা হয়েছে অন্যত্র।

গত পাঁচ জুলাই ২৩ জন প্রাইভেট সিকিউরিটি নিয়োগ করা হয়েছে রাঁচি রেল ডিভিশনে। আসানসোলেও তেমন ঘটনা ঘটতে চলছে। আসানসোল রেল ডিভিশনের সিনিয়র সিকিউরিটি কমিশনার চন্দ্রমোহন মিশ্র বলেন, 'ডিভিশনের বেশ কিছু জায়গায় প্রাইভেট সিকিউরিটি নিয়োগে টেন্ডারের জন্য পূর্ব রেলের সদর দপ্তরে পাঠিয়ে দিয়েছি। আমাদের রেল হাসপাতাল, ডিআরএম অফিস, অ্যাসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ারের দপ্তর, স্কুল-সহ রেলের যে অফিসগুলো রয়েছে সেখানে আরপিএফ সরিয়ে নিরাপত্তার দায়িত্ব প্রাইভেট সিকিউরিটি হাতে তুলে দেওয়া হবে। রেলের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে এই নির্দেশ এসেছে।'

আরপিএফ সূত্রে জানা গিয়েছে, পূর্ব রেলের হাওড়া ডিভিশন থেকে ১৬৮, শিয়ালদহ ডিভিশন থেকে ১২৭, চিত্তরঞ্জন রেল জোন থেকে ২৯১ এবং পূর্ব রেলের সদর দপ্তর থেকে ১৪ অর্থাৎ সব মিলিয়ে অন্তত ৬০০ আরপিএফ কর্মীকে অন্য জোনে বদলির তালিকা তৈরির নির্দেশ এসেছে। আর এর জেরে আরপিএফ কর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। আপাতত 'নন কোর' সেক্টরে কাজ করবেন বেসরকারি নিরাপত্তারক্ষীরা। তবে ভবিষ্যতে কী হবে তা নিয়ে সন্দিহান আরপিএফ অ্যাসোসিয়েশনের পদাধিকারীরা।

ভারতীয় রেলের আরপিএফ অ্যাসোসিয়েশনের সর্বভারতীয় সভাপতি সুরেন্দ্র রেড্ডি বলেন, 'রেল নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আমরা প্রাইভেট সিকিউরিটির বিরোধিতা করছি। এক জন আরপিএফ কর্মী যে ভাবে রেলের সম্পত্তি রক্ষা করতে পারবেন, তা কোনও প্রাইভেট সিকিউরিটি করতে পারবে না। আরপিএফ কর্মীদের নানা প্রশিক্ষণ দিয়ে তবেই চাকরিতে নিয়োগ করা হয়। দেখা গিয়েছে, রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পে যেখানে এই ধরনের প্রাইভেট সিকিউরিটি রয়েছে, সেখানেই নিরাপত্তার সমস্যা রয়েছে। বহু কোলিয়ারিতে প্রাইভেট সিকিউরিটি রয়েছে। কিন্তু সেখান থেকে কয়লা চুরির খবর আসে নিয়মিত।'

অন্য দিকে, চিত্তরঞ্জনের রেল শ্রমিক সংগঠনগুলোর নেতারা আরপিএফ সরিয়ে নেওয়ার বিরোধিতা করেছেন। আইএনটিইউসি নেতা এবং স্টাফ কাউন্সিলের সদস্য নেপাল চক্রবর্তী বলেন, 'হয়তো আগামী দিনে দেখা যাবে, রেলের অধিকাংশ ক্ষেত্রে আরপিএফ তুলে দিয়ে বেসরকারি নিরাপত্তারক্ষী দিয়ে কাজ চালানো হচ্ছে। আমরা এর তীব্র বিরোধিতা করছি।'


No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad