স্বাস্থ্য ভবনে ডেপুটেশন দিল পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য ছাত্র পরিষদ - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Wednesday, June 12, 2019

স্বাস্থ্য ভবনে ডেপুটেশন দিল পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য ছাত্র পরিষদ


বর্তমানে রাজ্যের সবচেয়ে বড় খবর নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল নিয়ে। রোগী মৃত্যুকে কেন্দ্র করে এবং জুনিয়র ডাক্তারদের আহত করা নিয়ে ধুন্ধুমার কান্ড নীলরতন মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। রাজ্যের অন্যান্য কিছু মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালেও সেই একই ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। ইতিমধ্যেই নীলরতন সরকার সহ রাজ্যের সকল মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে জুনিয়র ডাক্তারেরা আন্দোলনে বসেছেন। বন্ধ হয়েছে আউটডোর। ব্যাহত হচ্ছে রাজ্যের চিকিৎসা ব্যবস্থা। ছাত্রছাত্রী এবং জুনিয়র ডাক্তারদের করা আন্দোলন তুলতে এবং এই গম্ভীর বিষয়টির নিষ্পত্তি করতে রাজ্য সরকার এখনও পর্যন্ত তেমনভাবে সফলতা পায়নি। রাজ্যের সকল মেডিক্যাল কলেজের পড়ুয়াদের এবং জুনিয়র ডাক্তারদের দীর্ঘদিনের দাবী, ক্যাম্পাসের মধ্যে তাঁদের সুরক্ষা সুনিশ্চিত করা বিষয়ক। কিন্তু যুগের পর যুগ কেটে গেলেও তাঁদের সে দাবী পূরণ হয়নি। আহত জুনিয়র ডাক্তারেরা চিকিৎসারত। তাঁদের চোট মারাত্মক। রাজ্যজুড়ে এরকম কঠিন পরিস্থিতিতে রাজ্যের মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা এবং জুনিয়র ডাক্তারেরা ক্যাম্পাসের মধ্যে যখন তাঁদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন, ঠিক সেসময়ই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য ছাত্র পরিষদ কলকাতায় স্বাস্থ্য ভবন অভিযান করে এবং রাজ্য স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তার কাছে ডেপুটেশনও জমা দেয়। বুধবার (১২/০৬/২০১৯ তারিখে) দুপুরে ছাত্র পরিষদের একটি প্রতিনিধি দল রাজ্য স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তা অধ্যাপক (ডাঃ) প্রদীপ কুমার মিত্রর সাথে দেখা করেন এবং তাঁর দপ্তরে ডেপুটেশনও জমা দেন। ডেপুটেশনে দুটি দাবীর উল্লেখ ছিল- ১) রাজ্যে ডাক্তারিতে ভর্তিতে 'ডোমিসাইল বি' বাতিল করা এবং ২) রাজ্যের সকল মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে সেখানকার ছাত্রছাত্রী, জুনিয়র ডাক্তার এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা।
এ নিয়ে ছাত্র পরিষদের প্রতিনিধি দল দীর্ঘক্ষণ স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তা অধ্যাপক (ডাঃ) প্রদীপ কুমার মিত্রর সাথে আলোচনা করেন এবং তাঁদের দাবীগুলো বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেন। আলোচনা শেষে স্বাস্থ্য ভবন থেকে বেরিয়ে এলে এবং সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হলে তাঁরা জানান, "আলোচনা ইতিবাচক হয়েছে বলে মনে করি এবং মাননীয় স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তা আমাদের দাবীগুলোকে মনোযোগ সহকারে শুনেছেন এবং আমাদের কিছুটা আশ্বস্তও করেছেন।"
ছাত্র পরিষদের প্রতিনিধি হিসেবে এ দিন দুপুরে সেখানে উপস্থিত ছিলেন ছাত্র পরিষদের সহ-সভাপতি পূরব কুমার বসু, ছাত্রনেতা সুমন চক্রবর্তী, স্নেহাংশু বিকাশ পাল, মৌসম বড়ুয়া এবং সৈয়দ শাহবাজ কবীর।

ছাত্র পরিষদের সহ-সভাপতি পূরব কুমার বসু বলেন, "মেডিক্যালে ভর্তিতে 'ডোমিসাইল বি' থাকার কারণে পশ্চিমবঙ্গের হাজার হাজার মেধাবী ছাত্রছাত্রী ডাক্তারিতে ভর্তির সুযোগ হারাচ্ছেন। তাঁদের স্বপ্ন পূরণে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে 'ডোমিসাইল বি'। এটা ঠিক না। তাই আমরা ডাক্তারিতে ভর্তিতে 'ডোমিসাইল বি' বাতিল করাতে বদ্ধপরিকর।" রাজ্যের মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালগুলিতে ছাত্রছাত্রী, জুনিয়র ডাক্তার এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের নিরাপত্তার বিষয়ে তিনি আরও বলেন," নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল সহ রাজ্যের অন্যান্য মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ইন্টার্নদের উপর আক্রমনের ঘটনায় যুক্ত সকল অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার ও দ্রুত শাস্তির দাবীতে এবং প্রত্যেকটি হাসপাতালে ডাক্তারি ছাত্র, চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের উপযুক্ত নিরাপত্তার দাবী জানিয়ে আমরা ডেপুটেশন জমা দিলাম। আশাকরি, আমাদের দাবীগুলো পূরণ হবে।"

No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad