বাংলা-ঝাড়খণ্ড বর্ডারে বসছে ওয়াচ টাওয়ার।কেবল বিজেপিরই আপত্তি কেন ? উঠছে প্রশ্ন। - Banglar Chokh | True News for All

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Thursday, November 29, 2018

বাংলা-ঝাড়খণ্ড বর্ডারে বসছে ওয়াচ টাওয়ার।কেবল বিজেপিরই আপত্তি কেন ? উঠছে প্রশ্ন।

মুখ্যমন্ত্রী পুরুলিয়া সফরে ঘোষণা করেন, বাংলা-ঝাড়খণ্ড সীমান্তে নজরদারি বাড়ানো হবে। এমনকি বসবে সিসিটিভি ও ওয়াচ টাওয়ার। ঘোষণা শুনেই ক্ষোভে ফেটে পড়ছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। প্রকাশ্যে বা গোপনে অস্বস্তি প্রকাশ করছেন অনেক বিজেপি নেতাই।


দিলীপ ঘোষদের ক্ষোভ ঘিরে উঠছে প্রশ্ন। মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণায় বেজায় খুশি সীমান্ত এলাকার মানুষ। স্থানীয় মানুষের দাবী, ঝাড়খণ্ড সীমান্ত দিয়েই দিনের পর দিন গুণ্ডার দল রাজ্যে ঢোকে, ঢোকে অস্ত্রও। এরপর সীমান্ত লাগোয়া জেলাগুলিতে নানা ছোট-বড় অশান্তিতে স্থানীয় লোকেদের মুখে উঠে আসে এই বহিরাগত গুন্ডাদের কথা, এইসব অশান্তিতে অধিকাংশ ক্ষেত্রে নাকি শোনা যায় হিন্দি স্লোগান যা বাংলার মাটিতে কিছুটা অস্বাভাবিকই বটে। এমনকি স্থানীয় সূত্র অনুযায়ী রানীগঞ্জ ও আসানসোল দাঙ্গায় ঝাড়খণ্ড থেকেই এসেছিল দাঙ্গাবাজরা। লুটপাট করে তারা ঝাড়খণ্ডেই চলে গেছিল।

ইদানীং সীমান্ত এলাকায় বহিরাগতদের ভিড় বাড়ছে। চিন্তায় এলাকাবাসী। এমনকি ধর্ষণের ঘটনাও বাড়ছে। তাই মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণায় মানুষ খুশি হলেও কপালে চিন্তার ভাঁজ কেন বিজেপির ?

মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণার পর দিলীপ ঘোষ বলেন, "মুখ্যমন্ত্রী কেন দুই রাজ্যের মধ্যে মানুষের অবাধ যাতায়াত আটকাতে চাইছেন ? ঝাড়খন্ডকে ওনার এত ভয় কিসের ?" কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্তে বেআইনি বা অনৈতিক কিছু দেখছে না রাজনৈতিক মহল ও আইন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, আইনশৃঙ্খলা রাজ্য সরকারের অধীনে এবং তা রক্ষার জন্য যেকোনো পদক্ষেপ রাজ্য নিতেই পারে।
মানুষের প্রশ্ন, "বাকি বিরোধী দলগুলির কোন আপত্তি না থাকলেও বিজেপির কেন আপত্তি ? কেন তাদের কপালে চিন্তার ভাঁজ? তবে কি নিজেদের রাজনৈতিক সুবিধার জন্য বিজেপিই সীমান্ত পেরিয়ে বাংলায় ক্রমাগত গুন্ডাদের ঢোকাচ্ছে অশান্তি পাকাতে ?"






No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad